কওমিতে তথ্য-প্রযুক্তিনির্ভর কারিকুলাম প্রণয়নের সুপারিশ

প্রকাশঃ ১১:৩৫ মিঃ, নভেম্বর ১৮, ২০১৮
Card image cap

কওমিতে তথ্য-প্রযুক্তিনির্ভর কারিকুলাম প্রণয়নের সুপারিশ

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

দেশের কওমি ও আলিয়া মাদরাসা শিক্ষার্থীদের জন্য তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর যুগোপযোগী কারিকুলাম প্রণয়নের সুপারিশ করেছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। ইউজিসির বার্ষিক প্রতিবেদনে প্রথমবারের মতো কওমি ধারার শিক্ষার্থীদের কর্মসংস্থানের জন্যও উদ্যোগ নিতে সুপারিশ করা হয়েছে।

দেশের সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইউজিসি সম্প্রতি বার্ষিক প্রতিবেদন তৈরি করে রাষ্ট্রপতির কাছে পেশ করেছে। এই প্রতিবেদনে সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও উচ্চশিক্ষার জন্য বেশ কিছু সুপারিশ করেছে। কওমি ধারার শিক্ষার বিষয়টিও এসেছে ইউজিসির প্রতিবেদনে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গত ১৩ আগস্ট মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ‘কওমি মাদরাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিস (তাকমিল) এর সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি (ইসলামিক স্ট্যাডিজ ও আরবি) সমমান প্রদান আইন, ২০১৮’ অনুমোদন দেওয়া হয়।

কওমি মাদরাসার প্রায় ১৫ লাখ শিক্ষার্থীকে মূল ধারায় নিয়ে আসতে কওমি মাদরাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিস সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রি সমমান দেওয়া হয়।

এই স্বীকৃতির জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘কওমি জননী’ উপাধি দিয়েছেন কওমি মাদ্রাসাগুলোর সর্বোচ্চ সংস্থা ‘আল-হাইয়াতুল উলিয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’। গত ৪ নভেম্বর রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত ‘শুকরানা মাহফিলে’ এ উপাধি দেওয়া হয়েছে।

সংস্থাটির চেয়ারম্যান ও হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সভাপতিত্বে ওই সমাবেশে কয়েক হাজার কওমি মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থী অংশ নেন।

হেফাজতে ইসলামের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সরকারের সুসম্পর্কের আলোচনার মধ্যে উচ্চশিক্ষার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইউজিসিও কওমি শিক্ষার আধুনিকায়নের বিষয়টি নজরে এনেছে।

ইউজিসির প্রতিবেদনের সুপারিশে বলা হয়েছে, উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে বিশেষ করে কওমি ও আলিয়া মাদরাসার শিক্ষার্থীদের জন্য তথ্য-প্রযুক্তিনির্ভর যুগোপযোগী কারিকুলাম প্রণয়ন করতে হবে।

‘দেশের কওমি ও আলিয়া মাদরাসা শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বিপুল। এমতাবস্থায় আরবি বিশ্ববিদ্যালয় বা মাদরাসার উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীদের কর্মসংস্থানের জন্য সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে মধ্যপ্রাচ্যসহ অন্য দেশে কাজের সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি করা যেতে পারে।’

এরআগে গত বছরের ১৩ এপ্রিল কওমি সনদের স্বীকৃতি দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর গত ৪ মার্চ একসঙ্গে এক হাজার ১০ জন কওমি আলেমকে সরকারি চাকরিতে নিয়োগ দেয় সরকার।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাস্তবায়নাধীন মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম (ষষ্ঠ পর্যায়) প্রকল্পের দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদরাসায় কওমি নেসাবের শিক্ষক হিসেবে তারা যোগ দেন।

দেশের ইতিহাসে একসঙ্গে এতো কওমি আলেমের সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার ঘটনা সেটাই প্রথম বলে ইসলামিক ফাউন্ডেশন জানিয়েছিল।
 

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ৩৮ বার


মুখোমুখি

Card image cap
‘বাংলাদেশকেই হিটাচি পণ্যের বাজার হিসেবে অধিক সম্ভাবনাময় দেশ বলে মনে হয়’ - চেন টেক ব্যঙ্ক

হিটাচি হোম ইলেকট্রনিক্স এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব চেন টেক ব্যঙ্ক প্রকৃতঅর্থে একজন বয়োজষ্ঠ্য, কিন্তু তার জ্ঞানের পরিধি এবং অক্লান্ত পরিশ্রম তার বয়সকেও হার মানিয়ে দেয়। আর সে কারণেই তিনি হয়ে ওঠেন এক অদম্য যুবকের সমতুল্য। তার আধুনিক ব্যবসায়িক চিন্তাধারা এশিয় অঞ্চলে হিটাচি পণ্য ও সেবার  বাজারের ব্যাপক প্রসার ঘটাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। বাংলাদেশে হিটাচি কোম্পানির ডিস্ট্রিবিউটর ইউনিক বিজনেস সিস্টেম লিমিটেড কর্তৃক আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে মাসিক টেকওয়ার্ল্ড পত্রিকার প্রতিনিধির জনাব চেন টেক ব্যঙ্ক এর সাক্ষাৎকার গ্রহণের সুযোগ হয়, যার উল্লেখযোগ্য অংশটুকু এখানে তুলে ধরা হলোঃ

প্রশ্নঃ সাধারণ