নকল ওয়েবসাইট পরিচালনায় জড়িত শিবির

প্রকাশঃ ০৭:৫৩ মিঃ, নভেম্বর ২৯, ২০১৮
Card image cap

নকল ওয়েবসাইট পরিচালনায় জড়িত শিবির

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ও অনলাইন নিউজপোর্টালের আদলে তৈরি ওয়েবসাইটের ছড়াছড়ি অন্তর্জাল জগতে। নামে সামান্য পার্থক্য থাকলেও সহজে বোঝার উপায় নেই সাধারণ পাঠকের। আসল ওয়েবসাইটের হুবহু কপি নিউজের পাশাপাশি সরকারবিরোধী বিভিন্ন প্রপাগাণ্ডা ও ভুয়া তথ্য সম্বলিত নিউজও প্রচার করা হতো এসব সাইটে।

 

প্রতিষ্ঠিত সংবাদমাধ্যমের নামে নকল ওয়েবসাইট পরিচালনার দায়ে কামাল হোসেন ওরফে জি এম কামাল (২৩) ও ডোমেইন হোস্টিং বিক্রেতা আল আমিনকে (৩০) আটক করেছে র‌্যাব-২। যাদের সঙ্গে ছাত্র শিবিরের রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে।

বুধবার (২৮ নভেম্বর) দিনগত রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে কামালকে ও গাজীপুরের টঙ্গী থেকে আল আমিনকে আটক করা হয়। এসময় কামালের মোবাইল ও ল্যাপটপ থেকে প্রথম আলো, নয়া দিগন্তসহ পাঁচটি ভুয়া সাইট জব্দ করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২৯ নভেম্বর) র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান র‌্যাব-২ এর পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন ফারুকী।

তিনি বলেন, সম্প্রতি প্রথম আলো, বিবিসি বাংলাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠিত গণমাধ্যমের হুবহু বেশকিছু নকল ওয়েবসাইট দেখা যায়। যেগুলোর নামে খুবই সামান্য পার্থক্য রয়েছে যাতে পাঠক সহজেই বিভ্রান্ত হবেন।

প্রথম আলোর একটি অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করতে গিয়ে জানা যায়, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে একটি কুচক্রী মহল বিভিন্ন স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে নিউজ করে সংবাদমাধ্যমকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টায় লিপ্ত। এসব সাইটে সরকারবিরোধী প্রচারণার পাশাপাশি উদ্দেশ্যমূলক কোনো ব্যক্তির নামে অপপ্রচার করে আসছে। তারা আসল ওয়েবসাইট থেকে হুবহু নিউজ কপি করে আংশিক রেখে তার সঙ্গে মনগড়া তথ্য প্রকাশ করছিল।

‘বিভিন্ন ভুয়া ওয়েবসাইটের ডোমেইনের সূত্র ধরে মোহাম্মদপুর থেকে কামালকে আটক করা হয়। তার ব্যবহৃত ল্যাপটপ থেকে পাঁচটি ভুয়া ওয়েবসাইটের লিংক পাওয়া গেছে, যা হুবহু আসল ওয়েবসাইটের আদলে বানানো। কামালের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ডোমেইন ও হোস্টিং বিক্রেতা আল আমিনকে গাজীপুর থেকে আটক করা হয়।’

আল আমিনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা বলেন, কামালের চাহিদামতো সে প্রথম আলোর নামে একটি ভুয়া ওয়েবসাইট তৈরি করে সরবরাহ করেছে। এছাড়া বিভিন্ন ডোমেইন কিনে আসল পত্রিকার নাম-লোগো ব্যবহার করে কামাল পরিচালনা করতো।

গত ২৪ নভেম্বর বিমানবন্দর এলাকা থেকে দক্ষিণ কোরিয়া প্রবাসী এনামুল হককে গ্রেফতার করা হয়। যার কাছ থেকে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের আদলে ২২টি ভুয়া ওয়েবসাইট উদ্ধার করা হয়।

 মহিউদ্দিন ফারুকী জানান, সরকারবিরোধী প্রপাগাণ্ডা ছাড়ানোর উদ্দেশ্যে তারা এ অপকর্ম চালিয়ে আসছিল। এছাড়া, সরকারবিরোধী লেখা প্রকাশিত হলে বিএনপি-জামায়াতপন্থিরা বেশি লাইক ও শেয়ার করবেন, এর ফলে ফেসবুকেও বেশি আয় করার উদ্দেশ্য ছিল তাদের। ইতোপূর্বে গ্রেফতার এনামুলের আয়ের ৭০-৭৫ শতাংশ শিবিরের ফান্ডে যেতো।

সবশেষ আটক দু’জনও বিভিন্ন সময় শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। জনগণকে বিভ্রান্ত করে দেশকে অস্থিতিশীল করার জন্য তারা নামি-দামি পত্রিকার সুনাম কাজে লাগানোর চেষ্টা করছিল।

এ চক্রের সঙ্গে অন্যদের আইনের আওতায় নিয়ে আসতে চেষ্টা অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ২৩ বার


মুখোমুখি

Card image cap
‘বাংলাদেশকেই হিটাচি পণ্যের বাজার হিসেবে অধিক সম্ভাবনাময় দেশ বলে মনে হয়’ - চেন টেক ব্যঙ্ক

হিটাচি হোম ইলেকট্রনিক্স এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জনাব চেন টেক ব্যঙ্ক প্রকৃতঅর্থে একজন বয়োজষ্ঠ্য, কিন্তু তার জ্ঞানের পরিধি এবং অক্লান্ত পরিশ্রম তার বয়সকেও হার মানিয়ে দেয়। আর সে কারণেই তিনি হয়ে ওঠেন এক অদম্য যুবকের সমতুল্য। তার আধুনিক ব্যবসায়িক চিন্তাধারা এশিয় অঞ্চলে হিটাচি পণ্য ও সেবার  বাজারের ব্যাপক প্রসার ঘটাবে বলে আশা করা যাচ্ছে। বাংলাদেশে হিটাচি কোম্পানির ডিস্ট্রিবিউটর ইউনিক বিজনেস সিস্টেম লিমিটেড কর্তৃক আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে মাসিক টেকওয়ার্ল্ড পত্রিকার প্রতিনিধির জনাব চেন টেক ব্যঙ্ক এর সাক্ষাৎকার গ্রহণের সুযোগ হয়, যার উল্লেখযোগ্য অংশটুকু এখানে তুলে ধরা হলোঃ

প্রশ্নঃ সাধারণ