আমরা ব্যবহারকারীদের তথ্য বিক্রি করি না : মার্ক জাকারবার্গ

প্রকাশঃ ০৪:৩৭ মিঃ, জানুয়ারি ২৬, ২০১৯
Card image cap

আমরা ব্যবহারকারীদের তথ্য বিক্রি করি না : মার্ক জাকারবার্গ

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

ফেসবুকের ১৫ তম বার্ষিকী উপলক্ষে, সিইও এবং প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ তার কোম্পানির সম্পর্কে মানুষের কিছু ভুল ধারণা পরিষ্কার করার চেষ্টা করেছেন।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সম্পাদকীয়তে জাকারবার্গ ফেসবুকের ব্যবসায়িক মডেল এবং এটি কীভাবে পরিচালিত হয় তা স্পষ্ট করেছেন। বলেছেন-

আমি এমন একটি সেবা নিয়ে এলাম, যার মাধ্যমে মানুষ যোগাযোগের পাশাপাশি একে-অপরের সম্পর্কে জানতে পারবে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মানুষ এই সেবার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেছে, এবং আমরা সময়োপযোগী বিভিন্ন সেবা নিয়ে হাজির হয়েছি, যা বিশ্বজুড়ে বহু মানুষ পছন্দ করেছে। তারা প্রতিদিন এ সেবাগুলো ব্যবহার করছে।

আমাদের ব্যবসায়িক মডেল নিয়ে সম্প্রতি কিছু প্রশ্ন উঠছে। ওই প্রশ্নগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের কার্যক্রম পরিচালনার মূলনীতিগুলো আমি ব্যাখ্যা করতে চাই।

আমরা ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য বিক্রি করি না, যদিও মাঝেমধ্যেই খবর প্রকাশিত হয় যে আমরা তথ্য বিক্রি করি। প্রকৃতপক্ষে, বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে ব্যবহারকারীদের তথ্য বিক্রি করাটা আমাদের ব্যবসায়িক স্বার্থের পরিপন্থী। কারণ, এর ফলে বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে আমাদের সেবার মূল্য কমে যেতে পারে। ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য যাতে অন্য কেউ ব্যবহার করতে না পারে, সে ব্যাপারে আমরা অত্যন্ত সতর্ক।

অনেকের আশঙ্কা, বিজ্ঞাপন ফেসবুক ব্যবহারকারী ও আমাদের মধ্যে একধরনের স্বার্থের দ্বন্দ্ব তৈরি করে। সামগ্রিকভাবে মানুষের স্বার্থ জড়িত না থাকা সত্ত্বেও শুধু বিজ্ঞাপনের স্বার্থে আমরা ব্যবহারকারীর ফেসবুক ব্যবহার বাড়াতে চেষ্টা করছি কি না, এমন প্রশ্ন আসে।

এটা স্পষ্ট করতে চাই, আমরা ব্যবহারকারীর শেয়ারিং ও যোগাযোগ বৃদ্ধির ওপর অত্যন্ত মনোযোগী, কারণ আমাদের সেবার উদ্দেশ্যই হলো মানুষকে পরিবার, বন্ধু ও সমাজের সঙ্গে যুক্ত থাকতে সাহায্য করা। ব্যবসায়িক দৃষ্টিকোণ থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো, মানুষ ফেসবুকে ভালো সময় কাটাতে পারছে কি না। এটা না হলে দীর্ঘ মেয়াদে তারা আমাদের সেবা ব্যবহার করবে না।

ব্যবহার বাড়ানোর জন্য আমরা ক্ষতিকর ও বিভেদ সৃষ্টিকারী বিষয়বস্তু ফেসবুকে রাখছি না। মানুষ প্রতিনিয়ত আমাদের জানায় কোন বিষয়গুলো তারা দেখতে চায় না। বিজ্ঞাপনদাতারাও তাদের ব্র্যান্ডকে এই ধরনের বিষয়ের পাশে দেখতে চায় না। এরপরও ক্ষতিকর কিছু বিষয় থেকে যাওয়ার একমাত্র কারণ হলো, এগুলো পর্যালোচনার জন্য আমরা যে জনবল ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করছি, তা এখনো ক্রমোন্নতির পর্যায়ে রয়েছে। বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া মোটেই আমাদের উদ্দেশ্য নয়।

আমি চূড়ান্তভাবে বিশ্বাস করি, তথ্যের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নীতি হলো স্বচ্ছতা, নির্বাচন ও নিয়ন্ত্রণ। আমরা কীভাবে তথ্য ব্যবহার করছি, সে ব্যাপারে আমাদের স্পষ্ট হতে হবে এবং ব্যবহারকারীকেও স্পষ্ট অভিমত দিতে হবে, তাদের তথ্য কীভাবে ব্যবহার করা উচিত বলে তারা মনে করে। আমরা বিশ্বাস করি, সমগ্র ইন্টারনেট ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে এই নীতিগুলো বিধিবদ্ধ করা হলে সবার জন্যই মঙ্গলজনক হবে।

বিষয়টি সঠিকভাবে করা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এই ব্যবসায়িক মডেলের স্পষ্ট সুফল রয়েছে। প্রিয়জনের সঙ্গে যুক্ত থাকতে এবং নিজের মত প্রকাশে শত কোটি মানুষ বিনা মূল্যে একটি সেবা পাচ্ছে। বিশ্বজুড়ে ক্ষুদ্র ব্যবসায়িক উদ্যোগগুলো বেড়ে ওঠার এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির সুযোগ পাচ্ছে।

প্রযুক্তির অর্থ হলো, সর্বোচ্চসংখ্যক মানুষের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করা। আপনি যদি এমন একটি বিশ্বে বিশ্বাস করেন, যেখানে প্রত্যেকের বাক্‌স্বাধীনতা ও বক্তব্যের গ্রহণযোগ্যতা থাকবে, এবং সবাই নিজের প্রচেষ্টায় ব্যবসায়িক উদ্যোগ শুরু করতে পারবে, তাহলে এমন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করা প্রয়োজন, যা প্রত্যেকের জন্য উপযোগী হবে। আমরা এমন বিশ্বই গড়ে চলেছি প্রতিদিন, এবং আমাদের ব্যবসায়িক মডেলের কারণেই তা সম্ভব হচ্ছে।

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ১০১ বার