তরুণরাই মেধাবী বাংলাদেশের হাতিয়ার

প্রকাশঃ ১২:২২ মিঃ, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯
Card image cap

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, মেধাবী তরুণরাই মেধাবী বাংলাদেশের হাতিয়ার। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার তারাই কারিগর। মেধাবীরা এখন দেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়েই সীমিত নয় - বাংলাদেশ এখন মেধাবীদের বিস্তৃত জায়গা।

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, মেধাবী তরুণরাই মেধাবী বাংলাদেশের হাতিয়ার। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার তারাই কারিগর। মেধাবীরা এখন দেশের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়েই সীমিত নয় - বাংলাদেশ এখন মেধাবীদের বিস্তৃত জায়গা। আমাদের ছেলেরাই এখন বাংলাদেশে বিশ্বের সেরা মোবাইল সেট গুণগত মানসম্পন্ন ভাবে উৎপাদনের কারিগর হিসেবে বিস্ময় সৃষ্টি করছে। সজীব ওয়াজেদ স্যাটেলাইট গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট -১ নিয়ন্ত্রণের সক্ষমতা অর্জন করেছে। মন্ত্রী আজ ঢাকায় এক হোটেলে হুয়াওয়ে কর্তৃক ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার ২০১৯ ’ প্রতিযোগিতা উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশের তরুণদের দক্ষতা ও মেধার প্রশংসা করে বলেন, ২০২১ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশ ফাইভ জির যুগে প্রবেশ করবে। বিগত ২৫ জুলাই হুয়াওয়ের সহায়তায় ৫জির পরীক্ষা সম্পন্ন করেছে বাংলাদেশ। তিনি বলেন, ফাইভ জির সাথে সম্পর্কযুক্ত বিদ্যমান প্রযুক্তিগুলো পৃথিবীকে বদলে দেবে। তরুণ সমাজকে ফাইভ জি প্রযুক্তির উপযোগী করে গড়ে তোলার মাধ্যমে ডিজিটাল শিল্প বিপ্লবে নেতৃত্ব প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রজ্ঞাবান ও দূরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন প্রস্তুত। হ্যানরি কিসিঞ্জারের তলাহীন ঝুড়ি এবং বিভিন্ন দাতা সংসার ভিক্ষুকের জাতি খ্যাত বাংলাদেশ গত দশ বছরে উন্নয়নের প্রতিটি সূচকে অভাবনীয় সফলতা অর্জন
করেছে। বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। নিজেদের অর্থে আমরা পদ্মা সেতু মতো মেগা প্রকল্প আমরা বাস্তবায়ন করছি। অগ্রগতির অগ্রয্রাত্রা বেগবান করতে তরুণ সমাজের মেধাকে কাজে লাগাতে হবে - তাদেরকে প্রযুক্তির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার উপযুক্ত করে গড়ে তুলতে হবে।অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকতা ঝাং জেংজুন সিডস ফর দি ফিউচার প্রতিযোগিতার বিস্তারিত পরিকল্পনা তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০০৮ সাল থেকে সিডস ফর দি ফিউচার প্রতিযোগিতা শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্বের ১০৮ টি দেশে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। এতে বিশ্বব্যাপী ৩৫০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট ৩০,০০০ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেছেন। এবারের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের আইসিটি প্রতিভা তৈরি এবং তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক শিক্ষার প্রসারে হুয়াওয়ে বাংলাদেশের ৫টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মোট ১০জন শিক্ষার্থী বাছাই করবে। আগামী দুই মাস এই বাছাই প্রক্রিয়া চলবে।

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ১৪৪ বার

সম্পর্কিত পোস্ট