উদ্ভাবন মেধাসত্বের মাধ্যমে সুরক্ষতি রাখতে হবে, মোস্তাফা জব্বার

প্রকাশঃ ১০:৪৬ মিঃ, মে ১৩, ২০১৯
Card image cap

ডাক,টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, উদ্ভাবনের নিরাপওা মেধাসত্বের প্রতি গুরুত্বারোপ করে বলেন,ইনোভেশন যতই করা হোক না কেন,তাকে মেধাসত্বের মাধ্যমে সুরক্ষতি রাখতে হবে। 

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

ডাক,টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, উদ্ভাবনের নিরাপওা মেধাসত্বের প্রতি গুরুত্বারোপ করে বলেন, ইনোভেশন যতই করা হোক না কেন তাকে মেধাসত্বের মাধ্যমে সুরক্ষতি রাখতে হবে। আর মেধাসত্বের শুধু জাতীয় র্পযায়ইে না বরং আন্তর্জাতিক র্পযায়ওে সংরক্ষণ করতে হবে।আমাদের উদ্ভবনগুলো আন্তর্জাতিক পেটেন্টের মাধ্যমে নিরাপদ রাখা দরকার ।
প্যানেলে আলোচনায় দেশের প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থার পরিবর্তনের তাগিদ দিয়ে মোস্তাফা জব্বার আরো বলনে, আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা ব্রিটিশ আমলের।এখনো সেটির পরিবর্তন আমরা করতে পারিনি।আগামী পাঁচ বছরে এখনকার র্কমসংস্থানের ৮০ ভাগই হারিয়ে যাবে। নতুন নতুন ধরনের র্কমসংস্থান তৈরি হবে কিন্তু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এখনো জানে না যে ৫ বছর পরের চ্যালঞ্জে মোকাবেলায় আজ নতুন কি বিষয় পড়ানো উচিত তার সিলেবাস কি হবে।এর জন্য পাঠ্যপুস্তক এবং পাঠ্যদানের পদ্ধতিতে পরর্বিতন আনা দরকার বলে তিনি উল্লেখ করেন।।আজ জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে এটুআই আয়োজিত এক মতবনিমিয় সভায় এসব কথা বলনে তিনি ।এটুআই পরিচালিত ইনোভশেন ল্যাব (আই- ল্যাব) এরবিভিন্ন উদ্ভাবন আইটক্সে সহ বিভিন্ন আর্ন্তজাতকি স্বীকৃতি পাওয়ার বিষয়ে গণমাধ্যম র্কমীদের সাথে এটুআই এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। ইনোভেশনে উদ্ভাবনের জন্য গবেষণারও মেধাসত্বের বিকল্প নেই। গবেষণার মাধ্যমে উদ্ভাবন এবং সৃজনশীলতাকে অনুপ্রাণতি করতে হবে। আর মেধাসত্বের মাধ্যমে সইে উদ্ভাবনকে নিরাপদ রাখতে হবে।
এসময় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফসে ওসমান, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, আইসিটি বিভাগের প্রতমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলক প্রধান বক্তা হিসাবে এক প্যানেলে আলোচনায় অংশ নেন।।এটুআই এর পলিশি এডভাইজার আনীর চৌধুরীর মডারেশনে এবং এটুআই এর প্রকল্প পরচিালক মোস্তাফজিুর রহমানরে সভাপতিত্বে প্যানেল ডিসকাশন এ আরও অংশ নেন বাংলাদেশে ইউএনডিপি এর উপ আবাসিক প্রতিনিধি কিওকো ইউকোসুকা।
প্যানেল আলোচনায় বিজ্ঞানও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফসে ওসমান বলনে, আমাদের ছেলেদের আত্মশক্তি দিতে হবে। ইনোভশেন থেকে পাইলটিং এর দিকে যেতে হবে। শুধু গবষেণা করে ফেলে রাখলে হবে না।সেটিকে প্রয়োগ করতে হবে।সবাই সম্মিলিতভাবে কাজ করতে পারলে আমাদের মেধাবীদের এবং মেধা সম্পদগুলোকে কাজে লাগানো যাবে।এসময় তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমিন্ত্রী জুনাইদ আহমদে পলক বলনে, মেধাবী উদ্ভাবকদের কাজের সুযোগ করে দিয়েছে এটুআই এবং এটুআই এর ইনোভেশন ল্যাব। এখানে ফান্ডিং,নার্সিং,কোচিং সবই দেয়া হচ্ছে।তবে এই ইনোভেশন কে টেকসই করতে হলে একাডে মিয়ার সাথে ইন্ডাস্ট্রির দূরত্ব কমাতে হবে। এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সম্পৃক্ত হতে হবে,গবেষণা বাড়াতে হবে। আগামী ২০ বছরে বাংলাদেশ ইনোভেটিভ জাতিতে পরিণত হবে। এর আগে আইটক্সে ২০১৮ ও ২০১৯ এ এটুআই এর পুরস্কার পাওয়া উদ্ভবনি গুলো সকলের উদ্দেশ্যে তুলে ধরা হয়।
প্রসঙ্গত, আইটক্সেরে ২০১৮ আসর থকেে অংশগ্রহণ করে আসছে এটুআই এর আই-ল্যাব। সেবছর প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েই দুই টি উদ্ভাবক স্বর্ণ পদক এবং একটি উদ্ভাবন রৌপ্য পদক পায়। চলতি বছরের ২ মে থেকে ৪ মে ' তে অনুষ্ঠিত আসরে গ্রামীণ উদ্যোগ ' একশত ' স্বর্ণ পদক এবং আরও চারটি উদ্ভাবন রৌপ্য পদক অর্জন করে। এবারের আসরে ২১টি দেশের এক হাজার ৩২৭টি উদ্ভাবনের মধ্যেএকশত সেরা আন্তর্জাতিক উদ্ভাবন ট্রফিও অর্জন করে।



সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ১৫৩ বার