বিজয়ী প্রতিনিধিদল যাচ্ছে নাসায়

প্রকাশঃ ০৩:৫২ মিঃ, জুন ২০, ২০১৯
Card image cap

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮'র বিজয়ী হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ছয়টি ক্যাটাগরির ছয়টি দল এবং দলের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের অরল্যান্ডোতে অবস্থিত নাসার কেনেডি স্পেস সেন্টার ভ্রমণ এবং ফ্যালকন-নাইন স্পেস শাটলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছে।

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮'র বিজয়ী হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে ছয়টি ক্যাটাগরির ছয়টি দল এবং দলের সদস্যরা যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের অরল্যান্ডোতে অবস্থিত নাসার কেনেডি স্পেস সেন্টার ভ্রমণ এবং ফ্যালকন-নাইন স্পেস শাটলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছে।  এর পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮'র আয়োজক কমিটির পক্ষ থেকে বিজয়ী দল এবং বাংলাদেশে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮'র আয়োজক দলকে কেনেডি স্পেস সেন্টার ভ্রমণের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।জুলাইয়ের ১৯ তারিখ যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের অরল্যান্ডো বিমানবন্দরের উদ্দ্যেশে রওনা হয়ে ২০ জুলাই পৌঁছানোর পর ২১-২৩ জুলাই আয়োজিত অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের নেতৃত্বে নাসার উদ্দ্যেশে রওনা দেওয়ার কথা রয়েছেবাংলাদেশ দলের।২১ জুলাই ফ্যালকন-নাইন স্পেস শাটলের উড্ডয়ন অনুষ্ঠানে অংশ নেবে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮'এ বিজয়ীদল এবং প্রতিনিধিরা। পরবর্তী দুই দিন (২২-২৩ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের অরল্যান্ডোর কেনেডি স্পেস সেন্টারে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ৬টি দল সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশ নেবে এবং কেনেডি স্পেস সেন্টার ঘুরে দেখবে। উল্লেখ্য, নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮-তে বাংলাদেশ দল বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার খেতাব অর্জন করে চলতি বছরের ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯। প্রথমবারের মতো ১৩৯৫টি দলকে হারিয়ে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮ এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব অর্জন করে নেয় বাংলাদেশ। বেস্ট ইউজ অব ডেটা ক্যাটাগরিতে শীর্ষ চারে স্থান করে নেয়াক্যালিফোর্নিয়া, কুয়ালালামপুর আর জাপানের দলকে হারিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছেসিলেট থেকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দল ‘টিম অলিক’। এর আগে গতবছরের আট ডিসেম্বর ঘোষিত প্রাথমিক ফলাফলে বিশ্বের ৭৯ টি দেশের প্রায় ২৭২৯টি দলের সাথে প্রতিযোগিতা করে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের ২টি ক্যাটাগরির শীর্ষ চারে উঠে আসে বাংলাদেশ।  টিম অলিকের লুনার ভি আর প্রজেক্ট” টি মূলত একটি ভারচুয়াল রিয়েলিটি অ্যাপ্লিকেশন যার মাধ্যমে ব্যবহারকারী চাঁদে ভ্রমনের একটি অভিজ্ঞতা পাবেন। টিম অলিক নাসা প্রদত্ত বিভিন্ন রিসোর্স থেকে থ্রিডি মডেল ও তথ্য সংগ্রহ করে, নাসা আপোলো ১১ মিশন এর ল্যান্ডিং এরিয়া ভ্রমন , চাঁদ থেকে সূর্যগ্রহন দেখা এবং চাঁদ কে একটি স্যাটেলাইট এর মাধ্যমে আবর্তন করা এই তিনটি ভিন্ন পরিবেশকে ভার্চুয়ালভাবে তৈরী করেছে। নাসায় বাংলাদেশ দলের অংশ নেয়া প্রসঙ্গে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহ্মেদ পলক, এমপি এবং বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) জনাব হোসনে আরা বেগম, এনডিসি।মাননীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী বলেন, তরুণদের নিয়ে গড়া শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দল টিম অলিক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব অর্জন করেছে। বাংলাদেশে বেসিস, বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের মাধ্যমে এ আয়োজন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশের দল বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। পাশাপাশি, নাসায় এবার উড়বে বাংলাদেশের পতাকা। এ অর্জন ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার আরেকটি অনন্য দৃষ্টান্ত। এ অর্জন সম্পকে বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর বলেন, এ বছর আমাদের লক্ষ্যই ছিল গত তিন আসরের তুলনার ভালো করার। প্রথমবারের মতো নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ এর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাব অর্জনের পাশাপাশি বাংলাদেশ দল নাসায় যাচ্ছে। আমরা বেসিস থেকেডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যে যাত্রা অব্যাহত রেখেছি, এ অর্জন আমাদের প্রচেষ্টার পথে আরেকটি বড় মাইলফলক। নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮ এর আহ্বায়ক দিদারুল আলম বলেন, আমরা বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছি। এবার নাসা ভ্রমণের পালা। নি:সন্দেহে এটি গোটা বাংলাদেশের জন্য বড় অর্জন।টিম অলিকের দলনেতা আবু সাবিক মাহদি বলেন, প্রথমবারের নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় এবং নাসা ভ্রমণের সুযোগ পাওয়ায় এখন বাংলাদেশের সবার আমাদের প্রতি অনেক প্রত্যাশা। আমরা বাংলাদেশকে আরো উঁচুতে আসীন করতে চাই। বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের সহায়তায় আয়োজিত নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় ২০১৮ সালে ২০০০ প্রকল্প থেকে বাছাই করে সেরা ৪০টি প্রকল্প আমরা নাসার জন্যে মনোনীত করা হয়। বাংলাদেশের ৯টি শহরে  ( ঢাকা, চট্রগ্রাম সিলেট, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, রংপুর, ময়মনসিংহ এবং কুমিল্লা) এ আয়োজিত হয়।


সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ১৮৭ বার