‘ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান ’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশঃ ০৩:৪৪ মিঃ, নভেম্বর ২১, ২০১৯
Card image cap


টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

`ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান’ এর ওপর দিনব্যাপী এক কর্মশালা আজ সকালে (২০ নভেম্বর ২০১৯তারিখ) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান রিপোর্টের সুপারিশ এবং বাস্তবায়ন কৌশল সংশ্লষ্টি পক্ষরে সঙ্গে আলোচনা করতে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। 

চলতি বছরের অক্টোবর মাসে ডিজিটাল বাংলাদেশের আর্কিটেক্ট ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক মাননীয় উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় আনুষ্ঠানিকভাবে ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান রিপোর্ট প্রকাশ করেন।

অদ্যকর কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব জনাব এন এম জিয়াউল আলম।বিসিসির নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কোইকার কান্ট্রি ডিরেক্টর জনাব জো হনে-জু (Joe Hyun-Gue), তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) মোঃ মামুন-আল-রশীদ এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান এর প্রকল্প পরিচালক মোঃ মনির হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জিয়াউল আলম বলেন, দেশে শক্তিশালী একটি সরকারি ই-গভর্নমেন্ট ইকো-সিস্টেম প্রতিষ্ঠায় ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান অত্যন্ত কার্যকরী এবং টেকসই ভূমিকা পালন করবে। এটি সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/ বিভাগ/ সংস্থার আইসিটি সম্পর্কিত উদ্যোগ গ্রহণ ও রপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের ই-গভর্নমেন্ট জরিপ-২০১৮ অনুসারে বিশে^র ১৯৩ টি দেশের মধ্যেবাংলাদেশের অবস্থান ১১৫ তম। “মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় ২০২১ সালের মধে জাতিসংঘের ই-গভর্নমেন্ট র‍্যাংকিং এ পঞ্চাশে উন্নীত করার লক্ষ্য নির্ধারণকরেছেন।” 

উল্লখ্যে,২০০৩ সালে মাত্র ৪৫ টি দেশে ওয়ান স্টর্প প্লাটর্ফম ছিল এবং ২০১৬ সালে এটি ৯০ এ উন্নীত হয়। তিনি বলেন, বর্তমানে ৪০% এর বেশি সেবা ডিজিটাল পদ্ধতিতে চালু রয়েছে। ২০২১ সাল নাগাদ ৯০% সেবা অনলাইনে আনার কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। 

সভাপতির ভাষণে পার্থপ্রতিম দেব বলেন, সরকারের লক্ষ্য তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে নাগরিক সেবাসমূহ জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া। ই-গভর্নমেন্ট মাস্টার প্ল্যান পূর্ণরূপে বাস্তবায়ন হলে সকল নাগরিক সেবা, সরকারী ব্যবস্থাপনা ও পদ্ধতি অত্যন্ত ফলপ্রসু হবে। 

সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ৩১৫ বার