পাঁচ বিলিয়ন ডলার ও দশ লক্ষ কর্মসংস্থানের ই-কমার্স ইন্ডাষ্ট্রী গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি প্যানেল অগ্রগামীর

প্রকাশঃ ০২:০৫ মিঃ, জুন ৩, ২০২২
Card image cap

নির্বাচিত হলে বাংলাদেশে ইকমার্স ইকো সিষ্টেম নিয়ে কাজ করবে প্যানেল অগ্রগামী । গুরুত্বপাবে স্টার্টআপদের গ্লোবালি এগিয়ে যাওয়ার সবধরনের সহায়তা সহ বিনোয়োগ আকৃষ্ট করার মেন্টরশীপ। এছাড়াও সদস্যদের দক্ষতা উন্নয়ন সহ প্রাতিষ্ঠানিক সহায়তা প্রদানে কাজ করবে অগ্রগামী।

টেকওয়ার্ল্ড প্রতিনিধি:

নির্বাচিত হলে আগামী দুই বছরের মধ্যে পাঁচ বিলিয়ন ডলার ও দশ লক্ষ কর্মসংস্থানের ই-কমার্স ইন্ডাষ্ট্রী গড়ার  লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করবে এবারের ই-ক্যাব নির্বাচনে অংশগ্রহন কারী প্যানেল অগ্রগামী। ইক্যাব কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন কে সামনে রেখে আজ রাজধানীর  একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান প্যানেল সদস্যরা। সম্মেলনে অগ্রগামী প্যানেল সদস্যরা তাদের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা করেন। প্যানেলের পক্ষে আগামী দুই বছরের (২০২২-২০২৪জন্য অগ্রগামী প্যানেলের ভিশন নির্বাচনী ইশতিহার  সহ গত কয়েক বছরে ইক্যাবের অগ্রগতি বিষয়ে উপস্খাপনা পেশ করেন প্যানেল সদস্য ফুডপান্ডা বাংলাদেশের  সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যাবস্থাপনা পরিচালক আম্বারীন রেজা এবং পেপারফ্লাই লিমিটেডের  সহ- প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী  শাহরিয়ার হাসান।

নির্বাচনী ইশতেহারে আরো জানানো হয় নির্বাচিত হলে তারা বাংলাদেশে ইকমার্সের ইকো সিষ্টেম নিয়ে কাজ করবে যেখানে গুরুত্বপাবে স্টার্টআপ দের গ্লোবালি এগিয়ে যাওয়ার সব ধরনের সহায়তা সহ বিনোয়োগ আকৃষ্ট করার মেন্টরশীপ। এছাড়াও সদস্যদের দক্ষতা উন্নয়ন সহ প্রাতিষ্ঠানিক সহায়তা প্রদানে কাজ করবে অগ্রগামী।

উদ্যোক্তা তৈরী সহ সদস্যদের স্বার্থ সুরক্ষা এবং দক্ষতা উন্নয়নে স্টার্টআপ একাডেমী ও ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন করার ঘোষনা দেন আম্বারীন রেজা।

বক্তব্যে প্যানেল সদস্য শমী কায়সার বলেন- বাংলাদেশে ইকর্মাস ইন্ডাষ্ট্রীর বয়স মাত্র ৭-৮ বৎসর । এই ইন্ডাষ্ট্রীকে দেশের মানুষের প্রত্যাশা পূরণ এবং আস্থা অর্জনের জায়গায় নিয়ে যেতে  আমাদের পলিসি ডেভেলাপম্যান্ট , ‍ডিজিটাল লিটারেসী সহ আরো কিছু  কাজ করতে হবে । এই জায়গায় আমরা  আমাদের বিগত দিনের অভিজ্ঞতাটা কাজে লাগিয়ে আগামী দৃই বৎসরে ইক্যাব কে একটি শক্তিশালী  সংগঠন হিসাবে গড়ে তুলতে চাই।

আমরা সংঘবদ্বাতায় বিশ্বাস করি এবং গত ২ বৎসেরে করোনা কালীন সময়ে আমরা সদস্যদের সাথে সংঘবদ্ব হয়েই মানব সেবা সহ সদস্যদের ব্যাবসাকে সচল রাখতে কাজ করেছি ।  আগামীতেও আমরা সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। ইক্যাাব দেশের মানুষের কাছ যে গ্রহনযোগ্যতা পেয়েছে আমরা তার যথাযথ মর্যাদা দিয়ে এগিয়ে যেতে চাই- বক্তব্যে এমনটাই বলেন প্যানেল সদস্য এবং  ই-ক্যাবের প্রতিষ্ঠাতাকালীন সাধারণ সদস্য আব্দুল ওয়াহেদ তমাল।

বক্তব্যে অগ্রগামী প্যানেল সদস্য মোহাম্মদ সাহাব উদ্দিন শিপন বলেন- ভোক্তার আস্থা অর্জনের লক্ষ্যে এবং তাদের স্বার্থ রক্ষায় আইনী বিষয়গুলো নিয়ে আমরা  কাজ করবো এবং ইতোমধ্যেই  আমরা এ বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ের সাথে কাজ শুরু করে অনেক দুর এগিয়ে গেছি। তাছাড়া ইকর্মাসের প্রতি মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে এবং ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তার কাজটিকে আরো বেগবান করতে কাজ করবো আমরা।

ইশতেহার উপস্থাপনা এবং সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে প্যানেল সদস্য শাহরিয়ার হাসান বলেন- সদস্য সেবার উন্নয়নের লক্ষ্যে  ই-ক্যাবের প্রাসাশনিক অবকাঠামো ঠেলে সাজাবো আমরা সেই সাথে উদ্যোক্তাদের ডিজিটাল নিরাপত্তা বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্বি করতেও আমরা বদ্ব পরিকর । তাছাড়া সদস্যপদ প্রদান পদ্বতি সহজীকরনে যেমন গুরুত্ব দেব আমরা অন্যদিকে সদস্য আচরণে বিব্রতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সদস্য পদ প্রদানে যাচাই বাছাইতেও কঠোর হবো আমরা।

বাংলাদেশে লাখো নারী আজ ইকমার্স উদ্যোক্তা কিন্তু তাদের অনেকেই এখনও ই-ক্যাবের সদস্য নয় । ইক্যাব একটি বানিজ্যিক সংগঠন তাই এর সদস্যপদ পেতে কিছু আইনী কাগজ পত্রের বিষয় রয়েছে । তাই আমরা শুরু হতেই ইক্যাবের সহায়তা নিয়েই  উই প্লাটফর্মে কাজ করছি। যেখানে আমরা ছোট ছোট উদ্যোক্তাদের দক্ষতা উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যাবসায়িক কাগজ পত্র এবং আইনী বিষয় গুলো নিয়ে এডভোকেসী করি। ফলে তারা আস্তে আস্তে বিষয়গুলোর সাথে পরিচিত হচেছ । এখন তাদেরকে আমরা ইক্যাবের সদস্য হতে উৎসাহিত করার কাজ করছি।  সুতরাং আগামী বছরগুলো ই-ক্যাবের নারী সদস্য সম্পৃক্ততা অনেক বাড়বে বলে জানান প্যালেন সদস্য এবং উই এর সভাপতি নাসিমা আক্তার নিশা।

আমাদের তরুন উদ্যোক্তাদের ব্যাবসায়িক কার্য পরিচালনায় দক্ষতা উন্নয়নের পাশাপাশি ব্যাবসায়ি কাগজপত্র তৈরীতে সহায়তা প্রদান করতে আমরা সবসময়ই সদস্যদের পাশে ছিলাম । আগামীতেও তাদের পাশে তাদের একজন হয়েই থাকতে চাই – বক্তব্যে এমন আশাই ব্যক্ত করেন প্যানেলের কনিষ্ট সদস্য ও তরুন উদ্যেক্তা আসিফ আহনাফ।

সদস্যদের সদস্যপদ প্রাপ্তি এবং এদত সংক্রান্ত বিষগুলো নিয়ে সদস্য সেবা উন্নয়নে আমরা বিগত বছরগুলোতে ও সচেষ্ট ছিলাম আগামীতে আরো শক্তিশালীভাবে পাশে থাকার প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেন প্যানেল সদস্য মোহাম্মদ সাইদুর রহমান।

ই-কমার্স ব্যবসা বিশেষ করে যারা এফকমার্স নিয়ে কাজ করে তাদের জন্য পন্যের ডিজিটাল উপস্থাপন কৌশল টা খুবই জুরুরী। পলিসি উন্নয়ন  উদ্যাক্তাদের স্বার্থে  টেক্স , ভ্যাটের মত বড় বিষয়গুলোর পাশাপাশি সদস্যদের ব্যাবসা উন্নয়নে ড ছোট খাট বিষয়গুলোতে ও তাদের সহযোগিতা করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন প্যানেল সদস্য ‍রুহুল কুদ্দুস ছোটন।

এবারের নির্বাচনে মোট প্রার্থী ৩১ জন। ৯জন সদস্য বিশিষ্ট অগ্রগামী প্যানেল ছাড়াও প্রথমবারের মত অনূষ্টিত ইক্যাবের এই নির্বাচনে প্রতিদ্বধিতা করছে আরো দুটি প্যানেল সহ ৪ জন সতন্ত্র প্রার্থী। 

উল্লেখ যে আগামী ১৮ই জুন অনুষ্টিত হবে  ইক্যাব নির্বাচন এবং এই নির্বাচনের ভোটারের সংখ্যা ৭৯৫ জন।


সংবাদটি পঠিত হয়েছেঃ ৯০ বার

সম্পর্কিত পোস্ট